1. admin@janasongjog.com : admin :
  2. bookcafebd21@gmail.com : Sazzadur : Sazzadur
  3. zakirmin976@gmail.com : Zakir_min :
সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়ে ছাত্রশিবিরের বিবৃতি | জনসংযোগ
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৪ অপরাহ্ন

সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়ে ছাত্রশিবিরের বিবৃতি

  • প্রকাশের সময় শনিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৫৭ বার পড়া হয়েছে
FB IMG 1662822729824

দিনাজপুর সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) কর্তৃক ১৬ বছর বয়সি স্কুলছাত্র মিনহাজুল ইসলামকে হত্যার প্রতিবাদ ও অবিলম্বে সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।


এক যৌথ বিবৃতিতে ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি রাশেদুল ইসলাম ও সেক্রেটারি জেনারেল রাজিবুর রহমান বলেন, নতজানু পররাষ্ট্র নীতির কারণে সীমান্তে নির্বিচারে বাংলাদেশীদের হত্যা করে চলেছে বিএসএফ। সম্প্রতি রাতের ভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতে অবস্থানকালে ৭ সেপ্টেম্বর দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে সীমান্ত হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনার ঘোষণা দেন। কিন্তু তার পরদিন ৮ সেপ্টেম্বর শেখ হাসিনা ভারতে অবস্থানকালেই দিনাজপুর সীমান্তে বিএসএফ নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করে নবম শ্রেণীর ছাত্র মিনহাজুল ইসলামকে। এ নির্মম ও অপমানজনক হত্যাকান্ডের বিষয়ে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বা টু শব্দও করা হয়নি। যদিও একই সময়ে মুসলমানদের কাছ থেকে ক্ষমতা কেড়ে নেয়া ২০০ বছরের দখলদার বৃটিশ রাণীর মৃত্যুতে ৩ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছে সরকার।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সীমান্তে এমন নির্বিচারে হত্যা আন্তজার্তিক আইনের সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন। কিন্তু ভারতের সদিচ্ছার অভাব ও বাংলাদেশ সরকারের নতজানু পররাষ্ট্র নীতির কারণে বাংলাদেশীরা হরহামেশায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হত্যাযজ্ঞের শিকার হচ্ছে। ২০০০ সাল থেকে ২০২০ সাল, এই ২১ বছরে ১ হাজার ১৮৫ জন বাংলাদেশি বিএসএফের হাতে খুন হয়েছেন। যার মধ্যে রয়েছে আহত ও নির্যাতনের শিকার অসংখ্য বাংলাদেশী। ২০১১ সালে কিশোরী ফেলানীকে খুনের পর কাটাতারে ঝুলিয়ে রাখার নির্মম দৃশ্য বিশ্ববাসীকে কাঁদিয়েছিলো। কিন্তু হত্যাযজ্ঞ বন্ধ হয়নি। বরং গত জুলাই মাসে বিএসএফ প্রধান পঙ্কজ কুমাস সিং বাংলাদেশে বসে দাম্ভিকতার সাথে বলেছে ‘এ যাবতকালে সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে যারা নিহত হয়েছে, তারা সবাই অপরাধী’। এসময় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ দূরে থাক টু শব্দও করা হয়নি। অবৈধ সরকারের এমন নতজানু অমানবিক নিরবতাই সীমান্তে হত্যাকান্ড ঘটাতে বিএসএফকে উৎসাহিত করছে। ফলে প্রতিনিয়তই বাংলাদেশ সীমান্তে নির্বিচারে হত্যাযজ্ঞ, নির্যাতন, অপহরণ ও চুরি, ডাকাতি, দখলের মত ঘটনা ঘটাচ্ছে বিএসএফ। অথচ অন্যকোনো দেশের সীমান্তে বেসামরিক নাগরিকদের হত্যার সাহস দেখাতে পারেনা ভারত। অবৈধ সরকার শুধুমাত্র ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য এদেশের মানুষের জান-মাল ভারতীয় বাহীনির হাতে তুলে দিয়েছে।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, সরকার যখন দেশের মানুষকে বঞ্চিত করে হাজার হাজার টন ইলিশ ভারতে পাঠাচ্ছে তখন ভারত বাংলাদেশকে নিরপরাধ নাগরিকের লাশ উপহার দিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক ভারত সফরে জাতির জন্য কিছু নিয়ে আসতে না পারলেও লাশ নিয়ে এসেছে। অবৈধ সরকারের ধারাবাহিক নতজানু নিরবতা মানে হলো ভারতকে বাংলাদেশের মানুষকে হত্যার লাইসেন্স দেয়ার শামিল। দেশবাসী এ নতজানু নীতি পরিহার ও সীমান্ত হত্যা বন্ধ দেখতে চায়। সীমান্ত হত্যা বন্ধে সরকারকে অবিলম্বে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। নির্বিচারে হত্যাকারী বিএসএফ সদস্যদের বিচারের আওতায় আনতে প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক আদালতের শরনাপন্ন হতে হবে। অন্যথায় এদেশের মানুষের রক্ত এত সস্তা নয়। জান-মাল রক্ষায় প্রয়োজনে দেশের মানুষ কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়ে রাজপথে নেমে আসবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

এ জাতীয় আরো খবর..