,

বগুড়ায় আদালতে বাদী জমির জাল কাগজ দাখিল করায় বাদীর বিরুদ্ধে মামলা

মোঃসামিদুল ইসলাম,বগুড়া প্রতিনিধি:

বগুড়া ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে জমির জাল কাগজপত্র দাখিলের ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় মামলার তিন বাদীর বিরুদ্ধে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা হয়েছে। আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি করেছেন। বগুড়া ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী আবুল কাসেম বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। বিবাদীরা হলেন, বগুড়া জেলার শাজাহানপুর থানার দেশমা গ্রামের মৃত ফকির উদ্দিন প্রামাণিকের তিন পুত্র মো. মোজাম্মেল হোসেন, মো. মনির উদ্দিন ও মো. মালেক। আদালত সূত্রে জানা গেছে, বগুড়া জেলা ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে ২০১৭ সালের ৩রা মে বগুড়া জেলার শাজাহানপুর থানার দেশমা গ্রামের মৃত ফকির উদ্দিন প্রামাণিকের তিন পুত্র মো. মোজাম্মেল হোসেন, মো. মনির উদ্দিন ও মো. মালেক বাদী হয়ে একই গ্রামের মৃত হাছেন আলীর পুত্র মো. মোকছেদ আলী, বগুড়ার জেলা প্রশাসক, সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা, ভূমি কর্মকর্তাসহ ৭ জনকে বিবাদী করে জেলার শাজাহানপুর থানার দেশমা মৌজার আরএস ২৯৫ ও ৫০৩নং খতিয়ানের ৬১ শতক সম্পত্তি দাবি করে মামলা দায়ের করেন। আদালত শুনানি ও কাগজপত্র পর্যালোচনা করে দেখতে পান, ওই মৌজার গেজেট ২০০৫ সালের ৭ই এপ্রিল প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু বাদী পক্ষ মামলা করেছেন ২০১৭ সালের ৩রা মে। আইন মোতাবেক খতিয়ানের গেজেট প্রকাশের এক বছরে মধ্যে এবং তামাদি আইন অনুযায়ী পরবর্তী এক বছরের মধ্যে মামলা দায়েরের নিয়ম আছে। কিন্তু ওই সময়ের মধ্যে মামলা না করে প্রায় ১২ বছর পরে মামলা দায়ের করেন তারা। ফলে মামলাটি খারিজ হয়। সেই সঙ্গে খতিয়ান দু’টি জাল ও যোগসাজশভাবে প্রস্তুত বলে প্রমাণিত হয়। ফলে বিবাদী পক্ষ বাদীগণের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আদালতের কাছে প্রার্থনা করায় তা মঞ্জুর করে ফৌজদারি আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বগুড়া চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নথি প্রেরণ করা হয়। ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বিচারক শামছুল আরেফীন এ আদেশ দেন। আদালতের আদেশের প্রেক্ষিতে বগুড়া ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বেঞ্চ সহকারী আবুল কাসেম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
১,১৪৬,৫৬৪
সুস্থ
৯৭৮,৬১৬
মৃত্যু
১৮,৮৫১
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
৬,৩৬৪
সুস্থ
৯,০০৬
মৃত্যু
১৬৬
স্পন্সর: একতা হোস্ট