চাল আত্মসাতের অভিযোগ আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে, সচিব আটক

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামারদহ ইউনিয়ন পরিষদের সচিব রোকনুজ্জামানকে আটক করেছে পুলিশ। ইউনিয়নের দুস্থ-অসহায় পরিবারের মাঝে চাল বিতরণ না করে বিক্রির অভিযোগে রোববার (১ মে) সন্ধ্যার দিকে তাকে আটক করে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ।
সচিবকে আটকের সত্যতা স্বীকার করে গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইজার উদ্দিন জানান, সচিব রোকনুজ্জামানকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ইউএনও ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার মৌখিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাকে আটক করা হয়। তবে তার বিরুদ্ধে কেউ এখন পর্যন্ত লিখিত অভিযোগ করেনি।

বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আরিফ হোসেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গত ২৫ এপ্রিল কামারদহ ইউনিয়নের গরিব-অসহায় চার হাজার সুবিধাভোগী পরিবারের মাঝে ১০ কেজি করে চাল বিতরণের কথা ছিল। কিন্তু ওজনে কম এবং সুবিধাভোগী অনেক পরিবারকে চাল না দিয়ে ওইদিন চাল বিতরণ শেষ করা হয়। এ নিয়ে চাল আত্মসাতের অভিযোগ উঠে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সচিবের বিরুদ্ধে। বিতরণের আগেই চালের বস্তা পিকআপ ভ্যানে ফাঁসিতলা বাজারের ব্যবসায়ী আল-আমিনের কাছে বিক্রি করা হয় বলেও অভিযোগ করেন সুবিধাভোগীসহ স্থানীয়রা।

এদিকে, ঘটনার পর চাল ব্যবসায়ী আল-আমিনের সঙ্গে মুঠফোনে কথা হলে তিনি চাল ক্রয়ের কথা স্বীকার করে মুঠফোনে বলেন, ২৪ এপ্রিল রাতে সচিব তাকে ফোন করে চাল বিক্রির কথা জানালে তিনি কেজি প্রতি ২৮ টাকা করে চালের দাম ঠিক করেন। পরে ২৫ এপিল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ইউনিয়ন পরিষদের একটি রুম থেকে ৪০ বস্তা (৫০ কেজি) ওজনের চালের বস্তা পিকআপ ভ্যানে করে নিয়ে আসেন। চালের বস্তা পিকআপ ভর্তির সময় সচিব রোকনুজ্জামান এবং গ্রাম পুলিশ বাবলু মিয়া উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে কামারদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তৌকির হাসান রচির মুঠফোনে কয়েকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ না করে কেটে দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.